বিশ্বের সেরা ১০ মুসলিম ক্রিকেটার। Top 10 Muslim Cricketer

বিশ্বের সেরা ১০ মুসলিম ক্রিকেটার। Top 10 Muslim Cricketer – ক্রিকেট বর্তমান বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় একটি খেলা। টেস্ট খেলোয়া বেশিরভাগ দেশগুলোই ইসলামের বাইরে হলেও, বর্তমান ক্রিকেট বিশ্বে  মুসলিম ক্রিকেটার দের সংখ্যা খুব একটা কম নয়। কিন্তু কঠোরভাবে ইসলামকে মেনে মাঠে নামা ক্রিকেটার হাতে গোনা কিছু সংখ্যক।  অনেকে মুসলিম হলেও সেভাবে ইসলাম মেনে চলে না। কোরআন এর স্পর্শে যান না।

এমন পরিস্থিতিতেও বেশ কিছু ক্রিকেটা এর জীবনি বদলে গেছে। তারা শুধু ইসলাম মেনে চলেন তাই নয়। তারা এখন একজন খাদেম হিসেবে ইসলাম প্রচারের করে যাচ্ছেন। আজকে আমরা এমনই ১০ জন মুসলিম ক্রিকেটার এর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি সম্পর্কে জানবো।

বিশ্বের সেরা ১০ মুসলিম ক্রিকেটার

মোহাম্মদ ইউসুফঃ বিশ্বের সেরা ১০ মুসলিম ক্রিকেটার। Top 10 Muslim Cricketer পাকিস্তানি ক্রিকেটের অন্যতম ব্যাটস্ ম্যান মোহাম্মদ ইউসুফ শুরুতে ছিলেন একজন খ্রিষ্টান,  নাম ইউসুফ ইউহান। ইসলাম ধর্ম গ্রহণের পর ক্যারিয়ার এর শ্রেষ্ঠ সময় পাড় করেছেন তিনি। বর্তমানে ইসলাম ধর্ম প্রচারক সংগঠন  তাবলীগ জামাতের অন্যতম সদস্য হিসেবে নিয়মিত ধর্ম প্রচার করে যাচ্ছেন। তিনি একজন ধার্মিক মুসলিম।  তিনি কঠোরভাবে ইসলামের নিয়ম-কানুন মেনে চলেন।

ইমরান তাহিরঃ পাকিস্তানের জন্মগ্রহণ করা দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটার ইমরান তাহির। দলের অন্যতম এই বোলার কে ধর্মচারে উদ্ধুদ্ব  করেছেন ‘হাশিম আমলা’। আমলার অনুপ্রেরণায় তিনি নিজেকে ইসলাম সপ্রর্ধ্ব করেছেন ইসলামের ছাঁয়া তলে। তার মতে,  নিজেকে কঠোরভাবে  ইসলাম ধর্মের দিকে মনোনিবেশ করার জন্য তার ক্যারিয়ার সমৃদ্ধ হয়েছে।

ওয়েন পার্নেল থেকে ওয়ালিদঃ সাউথ আফ্রিকান ফাস্ট বোলিং অলরাউন্ডার ওয়েন পার্নেল ২০১১ সালের জানুয়ারি মাসে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। জানুয়ারি মাসে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেও, তিনি জুন ১০ তারিখ সকলের সামনে এই সত্যটি প্রকাশ করেন।

ধর্ম পরিবর্তনের পর তিনি নতুন নাম হিসেবে ‘ওয়ালিদ’ নামটি বেছে নিয়েছিলেন বলে ঘোষণা দেন। ঐ সময় তার এই ঘোষণাকে নিয়ে বেশ  জল্পনা-কল্পনা হয়েছিল। অনেকেই মনে করেছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার ওপেনার হাশিম আমলা ও বোলার ইমরান তাহির ই তাকে ধর্ম মেনে নিতে বাধ্য করেন। তনে, পরবর্তীতে তিনি তা সম্পূর্ণ নিজের ইচ্ছা বলে জানিয়ে দেন।

আদিল রাশিদঃ পাকিস্তানী বংশোদ্ভূত আদিল রাশিদ ইংল্যান্ডের ক্রিকেট দলের হয়ে খেলেছেন বেশ কিছুদিন ধরে। দলে স্থান লাভ ও অভিষেক হওয়ার পর তেমন কঠোরভাবে  ইসলাম পালনকারী না হলেও, সম্প্রতি তিনি ইসলামী নিয়ম কানুন মেনে নিজের জীবন পরিবর্তন করে নিয়েছেন। কোরআন তার জীবন পাল্টে দিয়েছে বলে মনে করেন তিনি।

সোহরাওয়ার্দী শুভঃ বাংলাদেশ ক্রিকেট এর অলরাউন্ডার সোহরাওয়ার্দী  শুভ  আন্তর্জাতিক  ক্যারিয়ার শুরু করার পর দলের হয়ে বেশ কিছু ম্যাচ খেলেছেন। জাতীয় দলে সুযোগ  না পেলেও  বিভিন্ন দলের হয়ে খেলে গেছেন। তিনি নিয়মিত কোরআনে কারিম তিলাওয়াত করেন এবং নামাজ আদায় করেন। তাবলীগের কাজেও তিনি সক্রিয়।

সাকলাইন মুশতাকঃ আর্ন্তজাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর গ্রহণের পর এই পাকিস্তানী গ্রেট তাবলীগের কাজে মনোনিবেশ করেছেন। ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা অফস্ক্রীনার এর দাওয়াতে পাকিস্তানের উঠতি অনেক  ক্রিকেটারের জীবন বদলে গেছে। তাদের মাঝে নৈতিকতা সৃষ্টিতে সে বিশেষ ভূমিকা রাখছেন।।

মইন আলীঃ বর্তমান ইংলিশ দলের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার এর পারফরম্যান্স চোখে পড়ার মতো। তিনি ইসলাম ধর্মের কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, “আমি আামর দাঁড়িকে ইসলামের পরিচয় হিসেবে দেখি। ইসলাম ধর্ম আমার কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়।  কোরআন আমার জীবন বিধান।” বিশ্বের সেরা ১০ মুসলিম ক্রিকেটার। Top 10 Muslim Cricketer

ইনজামাম–উল–হকঃ পাকিস্তানি ক্রিকেট এর অন্যতম সফল ব্যাটস্ ম্যান  এর নাম ইনজামা–উল–হক। মুলতানের সুলতান নামে খ্যাত পাকিস্তানি এই প্রভাবশালী ব্যক্তিটি এখন তাবলীগ জামাতের সক্রিয় সদস্য হিসেবে ইসলাম প্রচার রত। তিনি একবার বিশ্ব ইসতেমায় অংশ নিয়েছিলেন।  তিনি পাকিস্তান দলের প্রধান নির্বাচকের দায়িত্ব পেয়েছেন।  এশিয়া কাপে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম এ অনুশীলনের সময় উমান, আফগানিস্তানের খেলোয়াড়দের নিয়ে  ইনজামাম এর নেতৃত্বে  নামাজ আদায়ের চিত্র অনেকের মনেই দাগ কেটেছিলো।

সাঈদ আনোয়ারঃ পাকিস্তানি সফল ব্যাটস্ ম্যান ও বা’হাত ই ব্যাটস্ ম্যান দের আইডল সাঈদ আনোয়ার।  তার মেয়ে মৃত্যুতে শোকাহত এই পাকিস্তানি ক্রিকেটার ধর্ম পালনের মধ্যে  শান্তি  খুঁজে পান।  বর্তমানে তিনি তাবলীগ জামাতের মাধ্যমে ইসলাম প্রচার প্রসারে কাজ করে যাচ্ছেন।  প্রতিবছর নিয়ম করে টঙ্গী বিশ্ব ইস্তেমায় আসেন।

হাশিম আমলাঃ ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যাটস্ ম্যান হাশিম আমলা। তাকে বলা হয়, দক্ষিণ আফ্রিকা দলের ‘রানমেশিন’। তিনি একজন ধর্ম প্রাণ মুসলিম। কখনো রমজান মাসে খেলতে হলে,  রোজা রেখেই মাঠে নামেন তিনি।

শুধুমাত্র ধর্মীয় বিধিনিষেধ এর কারণে দক্ষিণ আফ্রিকা  ক্রিকেট দলের প্রধান স্পন্সর ‘ক্যাছেল’ মাদক উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান কোম্পানির  লোগো টি-শার্ট  পড়েন না। শোনা  যায়এই লোগো ব্যবহার না করার কারণে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেট বোর্ড–কে নাকি কিছু অর্থও দন্ড দিতে হয়।সেই সাথে আফ্রিকান ইসলাম ধর্ম প্রাণ মুসলিম এর হাত ধরে অনেকেই ধর্মের প্রতি সর্তক হয়েছেন।

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের

এছাড়াও বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ক্রিকেটার দের মধ্যে থেকে রাজিন সালেহ, আফতার আহমেদ  থেকে শুরু করে মুশফিকুর রহিম,  মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, তাসকিন আহমেদ,  সাকিব আল হাসান, আরাফাত সানি,  মোহাম্মদ আশরাফুল,  রুবেল হোসেন,  ইমরুল কায়েস সহ অনেককে প্রায়শই নামাজ আদায় ও বয়ান শুনতে রাজধানীর বিভিন্ন মসজিদে দেখা যায়৷ সেই সাথে অনেকেই নিয়ম করে পালন করছেন হজ্জ্ব।

 

Leave a Comment